ব্ল্যাকহোলের বাচ্চা

4.00 গড় রেটিং - 1 ভোট
বাড়তি নাম: Blackholer Baccha
প্রকাশক: সময় প্রকাশন
বিষয়: কল্পবিজ্ঞান, শিশু-কিশোর
লেখক:
পৃষ্ঠাসমূহ: 122
আইএসবিএন: 9789849018346
ভাষা: বাংলা
ধরণ: পিডিএফ

এলাকার বিশিষ্ট রাজাকার এবং সন্ত্রাসী এবং না জানি আরও কতকিছু, জনাব হাজী মহব্বতজান এর পয়সায় স্থাপিত এই স্কুলে নেই কোন নিয়ম কানুন, নেই কোন পড়ালেখার চাপ। শিক্ষকরা আদি পন্ডিতদের ঐতিহ্য মেনে ক্লাসে এসে ঘুমাতেন এবং প্রায়ই এক ক্লাসের বদলে অন্য ক্লাসে চলে যেতেন! মনে হয় মাঝে মাঝে ঘুমাবার জায়গা চেঞ্জ করতে ভালই লাগত তাদের! হাজী মহব্বতজানের ঠিক অপোজিটেই ছিল একটি নামকরা প্রাইভেট স্কুল। অক্সব্রীজ স্কুল, পুলের উপরে ষাড় হেটে যায়!! এর নাম নিয়ে মহব্বতজানের ছাত্ররা অনেক মজা করলেও তারা কিছুটা হিংসার চোখেই দেখতো এই ঝকঝকে স্কুলের চকচকে ছাত্রছাত্রীদের। একরাতে কি হল, বিশাল বিস্ফোরণ ঘটে, সারা শহরকে কাপিয়ে দিয়ে অক্সব্রীজ স্কুলের ভবন উড়ে গেল।

গল্পের নায়ক মিঠুন একটা ছোট ব্ল্যাকহোল বা ‘ব্ল্যাকহোলের বাচ্চা’ তৈরি করেছিল। সেটা নিয়েই কাহিনীর টুইস্ট ও বেড়ে ওঠা । আস্তে আস্তে সে আর তার টিসি-ফেরত-“হাজী মহব্বতজান”-স্কুলের আপাত অস্পৃশ্য বন্ধুরা মিলে স্কুলের ইতিহাসকে এক নতুন মাত্রা দেয়। কোনদিন বিজ্ঞান মেলার নাম না শোনা একটা স্কুলের বাচ্চারা বিজ্ঞান মেলায় অংশ নিয়ে প্রথম হয়, হারিয়ে দেয় শহরের সবচেয়ে নামজাদা ও কাঙ্ক্ষিত স্কুলটিকে। সেখান থেকেই এক অসময়ে তারা পরিণত হয় চোরাকারবারিদের লক্ষ্যবস্তুতে। এবং বহু কাঠ-খড় পুড়িয়ে তারা বেরিয়ে আসতেও পারে হয়তো। এর কিছুদিন পরেই স্কুলে এল এক আজব ছেলে। অতি অবশ্যই বড় ঘরের ছেলে, কারন তার মা তাকে গাড়ি করে নামিয়ে দিয়ে গিয়েছে। কিন্তু সে এখানে কেন? সময়ে আবিস্কার হল, অক্সব্রীজ স্কুলের ভবন ধ্বংস হবার পেছনে হাত রয়েছে তারই। এক বিদঘুটে বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা চালাতে গিয়ে সে বারোটা বাজিয়ে ছেড়েছে স্কুলটার! কি সেই পরীক্ষা?

রিভিউস

আবশ্যিক তথ্যগুলো * দিয়ে চিহ্নিত করা। আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না।